জিৎ গাঙ্গুলীর কোলে বসে এক মনে মা শুভশ্রীর নাচ দেখছে ছোট্ট ইউভান! নেট দুনিয়ায় দারুন ভাইরাল হল ভিডিও।

বাংলা চলচ্চিত্র জগতের জনপ্রিয় অভিনেত্রী শুভশ্রী গঙ্গোপাধ্যায়। মাত্র কয়েক বছরের মধ্যেই চলচ্চিত্রজগতে নাম অর্জন করে নিয়েছেন তিনি। কিছুদিন আগেই মা হওয়ার সুখ অর্জন করেছেন শুভশ্রী। তারপর থেকেই অভিনয় জগৎ থেকে এক প্রকার দূরে সরে গিয়েছেন নায়িকা। প্রথমবার চ্যালেঞ্জ ছবিতে অভিনয় করে চলচ্চিত্র জগতে পদার্পণ করেছিলেন শুভশ্রী। এরপর আর তাকে পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি।প্রথম জীবনে অভিনেতা দেবের সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিল নায়িকার।কিন্তু পরবর্তী সময়ে মনোমালিন্যের জের তাদের মধ্যে বিচ্ছেদ ঘটে যায়।

এরপর 2015 সালে অভিমান চলচ্চিত্রের শুটিংয়ে অংশ গ্রহণ করেন শুভশ্রী। সেই সময় পরিচালক রাজ চক্রবর্তীর সঙ্গে তার আলাপ হয়।এর পরেই তাদের মধ্যে ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক তৈরি হয় যা বিয়ে পর্যন্ত পৌঁছে যায়। 2018 সালে একে অপরের সাথে গাঁটছড়া বাঁধেন রাজ—শুভশ্রী। গতবছর লকডাউন চলাকালীন সময়ে তাদের একটি পুত্র সন্তানের জন্ম হয়, যার নাম রাখা হয় ইউভান।

বর্তমানে নিজের একমাত্র সন্তানকে নিয়েই ব্যস্ত রয়েছেন নায়িকা। সম্প্রতি কিছুদিন আগেই ডান্স বাংলা ডান্সের বিচারক পদে যোগ দিয়েছেন তিনি। এমতাবস্থায় তার একটি ভিডিও বেশ ভাইরাল হয়ে উঠলো।ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে,টিভির পর্দায় অভিনেতা জিৎ মদনানির সাথে জমিয়ে নাচ করছেন শুভশ্রী। সাথে রয়েছেন রিয়্যালিটি শো-এর অন্যান্য প্রতিযোগীরা। টিভির পর্দায় মায়ের এই নাচ বেশ মনোযোগ সহকারে দেখছে একমাত্র ছেলে ইউভান। সম্ভবত বাস্তব জীবন থেকে আচমকাই টিভির পর্দায় তার মাকে দেখে অবাক হয়ে গিয়েছে খুদে শিশুটি।

শিশুরা অত্যন্ত অবুঝ হয়ে থাকে। রাজশ্রী জুটির পুত্রও তার ব্যতিক্রম নয়। ইতিমধ্যেই ইউভান এর এই ভিডিওটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ঝড় তুলে দিয়েছে। স্বাভাবিকভাবেই মা-শিশুর সম্পর্কের এই সুন্দর সমীকরণকে উপভোগ করেছেন নেট নাগরিকরা। চাইলে আপনারাও এই ভাইরাল ভিডিওটি দেখে আসতে পারেন। ভিডিওটি সম্পর্কে কোন মতামত থাকলে অবশ্যই তা কমেন্ট বক্সে জানাতে ভুলবেন না।

 

Check Also

সিনেমা জগতে নেই কোনো কাজ। তাই ফেসবুকে লাইভে এসে শাড়ি বিক্রি করছেন রচনা ব্যানার্জী! দারুন ভাইরাল হল ভিডিও।

যুগের পরিবর্তনের সাথে সাথেই মানুষের জীবিকার পরিবর্তন হতে থাকে। কথায় রয়েছে আজ যে রাজা কাল …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

You cannot copy content of this page