Home / News / সমুদ্রে ঝাঁপ দেওয়ার ২ বছর পর জল থেকেই জী’বিত অবস্থায় উ’দ্ধার মহিলা

সমুদ্রে ঝাঁপ দেওয়ার ২ বছর পর জল থেকেই জী’বিত অবস্থায় উ’দ্ধার মহিলা

২ বছর আগে নিখোঁজ হয়েছিলেন মহিলা, ঝাঁ’প দিয়েছিলেন জলে… এরপর বেপাত্তার তালিকায় উঠে গিয়েছিল তাঁর নাম! কিন্তু কথায় বলে না, রাখে হরি মারে কে? ২ বছর ধরে সমুদ্রেই বেঁচে ছিলেন কলম্বিয়ার বাসিন্দা ৪৬ বছর বয়সি অ্যাঞ্জেলিকা গাইতান! শনিবার মাঝসমুদ্রে ভাসমান অবস্থায় তাঁকে উ’দ্ধার করেন এক মৎস্যজীবী।

পুয়েরতো কলোম্বিয়া থেকে ১.২ মাইল গভীরে অতলান্ত মহাসাগরে একটি রাবার টিউবের সাহায্যে ভেসে ছিলেন অ্যাঞ্জেলিকা গাইতান। যখন রোল্যান্ডো ভিসবাল নামের ওই মৎস্যজীবী তাঁকে উদ্ধা’র করেন, তখন তিনি অচৈতন্য। হাইপোথারমিয়ায় আ’ক্রা’ন্ত। স্থানীয়রা তাঁকে তড়িঘড়ি হাস’পাতালে নিয়ে যান। সেখানেই তাঁকে ধীরে ধীরে সুস্থ করে তোলা হয়।

ভিসাবাল জানিয়েছেন, মাঝসমুদ্রে ভাসমান মহিলাকে দেখে প্রথমে তিনি আঁচ করতে পারেননি, ভেবেছিলেন হয়তো কোনও কাঠের টুকরো। কিন্তু খানিকটা কাছে যেতেই লক্ষ্য করেন কেউ একটা হাত নাড়ছে, ভেসে আসছে সাহায্যের আর্ত চিৎ’কার। ঝড়ের গতিতে মহিলার দিকে বোট নিয়ে এগিয়ে যান ভিসবাল।

জল থেকে তাঁকে টেনে তোলেন নৌকায়। জল খেতে দেন। এরপরই কান্নায় ভেঙে পড়েন অ্যাঞ্জেলিকা। ভিসবাল বারবার তাঁকে তাঁর নাম জিজ্ঞেস করতে থাকেন, কিন্তু তিনি কিছুই বলতে পারছিলেন না… কান্নায় গলা বুজে এসেছিল অ্যাঞ্জেলিকার।

একটি সংবাদমাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, উদ্ধারের পর মহিলা হাউহাউ করে কাঁ’দতে থাকেন। একটু থিতু হলে বলেন, ” আমার দ্বিতীয় জন্ম হল। ঈশ্বর চাননি আমার মৃ’ত্যু হোক।” হাসপাতালে সুস্থ হওয়ার পর বোগাটায় পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয় অ্যাঞ্জেলিকাকে।

Amigos les comparto todos los vídeos que logré al momento del rescate en Altamar de Angélica Gaitan frente a las costas del municipio de Puerto Colombia el día sábado 26 de Septiembre de 2020 !

Posted by Rolando Visbal Lux on Tuesday, 29 September 2020

কিন্তু কেন জলে ঝাঁ’প দিয়েছিলেন অ্যাঞ্জেলিকা গাইতান? তিনি জানান, পরিবারে অশা’ন্তি লেগেই থাকত! নিত্যদিন স্বামীর অত্যা’চারে ক্লা’ন্ত হয়ে পড়েছিলেন। ২০১৮ সালে বাড়ি ছেড়ে বেরিয়ে যান। প্রায় ৬ মাস রাস্তায় রাস্তায় ঘুরে বেড়িয়েছিলেন।

এরপর, প্রাক্তন প্রেমিকের সাহায্যে বারানকুইলায় একটি ওমেনস অফিসে আশ্রয় পা। কিন্তু একদিন তিনি জানতে পারেন প্রাক্তন প্রেমিক বারানকুইলা শহর ছেড়ে চলে গিয়েছেন, কাজেই তাঁর সেই আশ্রয়টুকুও চলে যায়। অসহায়, নিরুপায় অবস্থায় অ্যাঞ্জেলিকা ঠিক করেন, মৃ’ত্যু ছাড়া তাঁর বাঁচার আর কোনও উপায় নেই। ঝাঁ’প দেন অতলান্ত মহাসাগরে।

Check Also

সাদা-কালো এই ছবিতে গাছের শাখা-প্রশাখায় লুকিয়ে মোট কতগুলি প্রাণী? খুঁজে বের করুন তো

সোশ্যাল মিডিয়ার দৌলতে এখন ‍‍`অপটিক্যাল ইলিউশন‍‍` জাতীয় ছবি বা ভিডিওর সঙ্গে সকলেই বেশ পরিচিত। মস্তিষ্কের ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *