Home / Exception / শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি, শুধু পায়ের পাতার ছবি বিক্রি করেই মাসে আয় সাড়ে ৩ লাখ টাকা!

শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি, শুধু পায়ের পাতার ছবি বিক্রি করেই মাসে আয় সাড়ে ৩ লাখ টাকা!

করোনার কারণে গো’টা বিশ্বে দেখা দিয়েছে আর্থিক ম’ন্দা। কাজ হা’রিয়েছেন কয়েক লক্ষ লক্ষ মানুষ। কেউ আবার বিগত কয়েকমাস ধ’রে পাচ্ছেন না বেতন। আবার অনেকের বেতন কমেও গেছে। কিন্তু এই পরিস্থি’তিতেও এক মার্কিন নাগরিক মাসে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকা রোজগার করছেন। তাও আবার কেবল নিজের পায়ের পাতার ছবির বিক্রি করে। শুনতে অবাক লাগলেও এটাই সত্যি। কিন্তু কারা কিনছে এই ছবিগুলো? কেনই বা এত টাকা পাচ্ছেন ওই ব্যক্তি? আসুন জেনে নেওয়া যাক সেই ঘ’টনা।

আমেরিকার অ্যারিজোনার বাসিন্দা ওই ব্যক্তির নাম জেসন স্ট্রম। জানা গেছে, ৩৫ বছর বয়সী জেসনের এই পায়ের পাতার ছবি কেনেন পুরুষ-নারী উভয়েই। আর এই ছবি বিক্রি করেই প্রতি মাসে ৪ হাজার ডলার আয় করেন জেসন। অর্থাৎ বাংলাদেশি মুদ্রায় যার পরিমাণ ৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। এমনকি তার নিজস্ব ইনস্টাগ্রাম পেজও রয়েছে। তাতে ফলোয়ারের সংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার।

কিন্তু কেন এত টাকা পান জেসন? আসলে পৃথিবীতে প্রত্যেক মানুষের কিছু না কিছুর প্রতি তী’ব্র আক’র্ষণ থাকে। তেমনই এমন অনেক মানুষ আছেন যারা অন্যের পায়ের পাতার ছবির প্রতি আকৃ’ষ্ট হন। জেসন নিজেও সেরকমই একজন। আর তাই তো হটাৎ করে একদিন এই ভাবে অর্থ উপার্জনের রাস্তাও খুঁ’জে বের করেন তিনি। তারপর থেকে নিজেই নিজের পায়ের পাতার ছবি তু’লে বিক্রি করতে শুরু করেন। এজন্য তিনি ‘only fans’ নামে একটি ওয়েবসাইটের সাহায্য নেন। সেটির মাধ্যমে স’রাস’রি নিজের গ্রাহকদের ছবি পা’ঠান জেসন। এই ওয়েবসাইটে সাবস্ক্রিপশন নিতে গেলে প্রতি মাসে গ্রাহককে দিতে হয় ৭.৯৯ ডলার।

এই প্রসঙ্গে জেসনের মন্তব্য, “যেহেতু এই সমস্ত ছবি বিনা পয়সায় বা অনলাইনে বিনামূল্যে পাওয়া যায় না, তাই সবাই ওয়েবসাইট থেকে ছবিগুলো কেনেন। এজন্য আমি টাকাও পাই। আর আমি নিজেও একইভাবে পায়ের পাতার প্রতি আকৃ’ষ্ট হয়ে পড়ি। তাই ওদের ব্যাপারটা বুঝতে আমার অসুবিধা হয় না।”

এদিকে, খবরটি সামনে আসতেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে রী’তিমতো হ’ইচ’ই পড়ে গেছে।‌ সূত্র: রিপাবলিক ওয়ার্ল্ড

Check Also

সঞ্চয়পত্রে প্রতি লাখে নতুন মুনাফা নির্ধারণ

জাতীয় সঞ্চয়পত্রে বিনিয়োগ অন্য যে কোন ঝুঁকিহীন বিনিয়োগ থেকে লাভজনক। আপনি আপনার মোট বিনিয়োগের ন্যূনতম ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *