Home / Lifestyle / বিয়ের ১৮ মাসেও স্বামীর সাথে কোন ঝগড়া না হওয়ায় শরিয়া আদালতে তালাক চাইলেন স্ত্রী!

বিয়ের ১৮ মাসেও স্বামীর সাথে কোন ঝগড়া না হওয়ায় শরিয়া আদালতে তালাক চাইলেন স্ত্রী!

বিয়ের ১৮ মাস পরেও কোন বিষয়েই স্বামীর সাথে ঝ’গড়া তো দূরের কথা কখনও কথা কা’টাকা’টি পর্যন্ত হয়নি। বদলে সবকিছুই মুখ বুঝে স’হ্য করে গেছেন স্বামী। স্ত্রী’র অ’ন্যা’য় দেখলেও তাকে ক্ষ’মা করে দিয়েছেন স্বামী। তাকে ভালোবেসেছেন। স্বামীর এই মনোভাব কোন ভাবেই স’হ্য করতে না পেরে স্থানীয় শরিয়া আদালতে গিয়ে তালাক চাইলেন এক মুসলিম নারী।

অ’দ্ভু’ত ঘ’ট’নাটি ঘ’টেছে ভারতের উত্তর প্রদেশের সম্বল জেলায়। আদালতে ওই নারী জানায় স্বামী তাকে এতটাই ভালবাসেন-যে তা স’হ্য করতে পারছেন না ওই নারী। বিয়ের ১৮ মাস পরেও স্বামীর সাথে কোন বি’বা’দ না হওয়ায় তিনি খুবই বি’র’ক্ত বোধ করছেন। আদালতে তিনি জানান ”কোন বিষয়েই আমার স্বামী কখনওই আমাকে চিৎকার করে কথাও বলেননি বা তিনি কখনও আমার কোন ব্যাপারে হ’তা’শাও জানায়নি। এমনকি আমার স্বামী আমার জন্য রান্না করে এবং ঘরের প্রতিটি কাজেই সে সহায়তা করে।”

ওই নারী আরও জানান ”আমি যখনই কোন ভু’ল করি, সেই কাজের জন্য আমার স্বামী আমাকে ক্ষমা করে দেয়। আমি চেয়েছিলাম যে বিষয়টি নিয়ে তিনি আমাকে কিছু বলুক, আমাকে ব’কা দিক। তাই আমি এমন কোন জীবন চাই না যেখানে স্বামী সবকিছুই মেনে নেবেন।” স্বামীর কাছ থেকে বি’চ্ছে’দ চাওয়ার কারণ হিসাবে মুসলিম নারীর এই বক্তব্য শুনে হ’তবা’ক শরিয়া আদালতও।

গোটা বিষয়টিকে ‘বাজে’ ঘ’টনা বলে আ’খ্যা’য়িত করে আদালতের ধর্মগুরু সেই তালাকের আর্জি খা’রিজ করে দিয়েছেন। আদালতের কাছে প্র’ত্যা’খিত হয়ে শেষে স্থানীয় গ্রাম পঞ্চায়েতের দ্বা’র’স্থ হন তিনি। কিন্তু ওই মুসলিম নারীর বক্তব্য শুনে স্থানীয় পঞ্চায়েতও কোন য’থো’পুযু’ক্ত সিদ্ধান্তে আসতে ব্য’র্থ হয়।

এদিকে ওই নারীর স্বামী জানিয়েছেন তিনি তার স্ত্রীকে ভালবাসেন এবং যতদিন তিনি বেঁচে থাকবেন ততদিন স্ত্রীকে সুখী রাখতে চান। আর এতে তিনি কোন অ’ন্যা’য় কাজ করেছেন বলে তিনি মনে করেন না। আসলে তিনি চান একজন আদর্শ স্বামী হতে।

Check Also

চা-কফি নয়, সকালে ঘুম থেকে উঠে এই ৫টি খাবার খান, কোন রো’গ ধা’রে কাছে ঘেঁসতে পারবে না!

চা-কফি নয়, সকালে ঘুম থেকে উঠে এই ৫টি খাবার খান। কোন রো’গ ধারে কাছে ঘেঁসতে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *