Home / Lifestyle / এই 4 রাশির মেয়েরা বিয়ের পর তার স্বামীর কোন ক্ষতি হতে দেয় না, স্বামীর জীবন বাঁচাতে এরা সব কিছুর সাথে ল’ড়তে রাজি

এই 4 রাশির মেয়েরা বিয়ের পর তার স্বামীর কোন ক্ষতি হতে দেয় না, স্বামীর জীবন বাঁচাতে এরা সব কিছুর সাথে ল’ড়তে রাজি

অনেক সময় দেখা যায় যে বিয়ের যোগ্য মেয়েদের কিছুতেই বিয়ে হতে চায়না। কোন না কোন ভাবে তাদের বিয়ে ভেঙে যায়। বিয়ে ভে’ঙে যাবার মূল কারণ হতে পারে বাস্তু দো’ষ। যদি আপনার বাড়িতেও বাস্তুদোষ থেকে থাকে, এবং আপনার কিছুতেই বিয়ে হচ্ছে না, তবে বাস্তুশাস্ত্রে উল্লিখিত কিছু প্রতিকার আপনার করা উচিত। মাশরুম নির্মূল করলে বিবাহ সংক্রান্ত সব বাধা কেটে যায়,শীঘ্র বিবাহ সম্পন্ন হয়।

বাস্তু বিজ্ঞান মতে এমন অনেক কিছু জিনিস আমাদের আছে যা বিয়ে করতে সমস্যা সৃষ্টি করে। অন্যদিকে কোনভাবে যদি বিয়ে সম্পন্ন হয়ে যায়, তাহলে দাম্পত্য জীবন অশান্তিপূর্ণ হয়। বাস্তুশাস্ত্রে কিছু ব্যবস্থা উল্লেখ করা আছে। যেগু’লি করলে বিবাহ দ্রু’ত হয়ে যায় এবং বাড়ির আর্কিটেকচার ও নিখুঁত হয়।

তাহলে জেনে নেওয়া যাক এই প্রতিকার গুলি র সম্পর্কে, প্রথমত, যে কুমারী মেয়েদের বিয়ে করতে সমস্যা হচ্ছে তাদের দক্ষিণ এবং দক্ষিণ-পশ্চিম দিকে ঘুমানো একেবারেই উচিত নয়। ওইদিকে ঘুমালে তার বিবাহে বাধা সৃষ্টি হতে পারে। বাস্তুশাস্ত্র মতে, শোবার সময় বিষয়টি এমনভাবে রাখতে হবে, যাতে আপনার পা উত্তর দিকে থাকে এবং মাথা দক্ষিণ দিকে থাকে।

দ্বিতীয়ত, কুমারী মেয়েদের বেশি দরজা সহ ঘরে ঘুমানো উচিত নয়। বেশি দরজা আছে এমন ঘরে ঘুমানোর ফলে তাঁর বিবাহ হয় না। বাস্তু মতে বিবাহযোগ্য মেয়েদের একটিমাত্র দরজা সহ ঘরে ঘুমানো উচিত।বিবাহযোগ্যা মেয়েদের এমন একটি ঘরে ঘুমানো উচিত যেখানে বায়ু এবং আলো কম অনুপ্রবেশ করে।

তৃতীয়ত, বিবাহযোগ্য মেয়েরা এবং ছেলেরা যেন গাঢ় রংয়ের পোশাক না পড়েন। গাড়ো রং এর পোশাক পড়লে বিয়ের ক্ষেত্রে নানাবিধ সমস্যা তৈরি হতে পারে। পোশাক ছাড়াও কালো রঙের জিনিস গুলি সব সময় এড়িয়ে চলা উচিত।

চতুর্থত, ঘরের রং গাঢ় হলে কখনো বিয়ে হয় না। গাড়ো রং এর পক্ষে ঘুমোচ্ছেন এমন লোকেরা মানসিক চাপে পূর্ণ হয়। তারা কোন কাজে সাফল্য পান না । একা এবং অল্প বয়স্ক পুরুষদের তাদের ঘরের রং এর দিকে মনোযোগ দেওয়া উচিত, ঘরের দেওয়ালে হলুদ বা হালকা গোলাপি রং করা উচিত। হালকা রঙ দেওয়ালে থাকলে মন শান্ত থাকে।

পঞ্চমত, কেউ যদি কখনো বিয়ের কথা বলতে আসে তবে তার উচিত বাড়ির ভেতরে বসে কথা বলা। বাড়ির বাইরে বসে মুখোমুখি হয়ে কথা বললে বিবাহ স্থির হয় না, কোন কারণে ভেঙে যেতে পারে।

ষষ্ঠত, বৃহস্পতিবার হলুদ রঙের পোশাক পরা উচিত, যতটা সম্ভব হলুদ জিনিস খাওয়া উচিত। স্নান করার জলে কিছুটা হলুদ মিশিয়ে নিলে ভালো হয়। স্থানের পর কপালে হলুদের তিলক লাগালে বিবাহ শীঘ্র হয়ে যায়।

সপ্তমত, এই কাজগুলো ছাড়াও প্রতি সোমবার ভগবান শিবের পুজো করা উচিত। এটি সাধারণত অবিবাহিত মেয়েদের করা উচিত। শিবের উপাসনা করলে সত্তিকারের জীবনসঙ্গী ভাবা যায়। পুজোর সময় অবশ্যই অবিবাহিত পুরুষ এবং স্ত্রীকে শিবকে লাল ফুল দিতে হবে।

Check Also

চা-কফি নয়, সকালে ঘুম থেকে উঠে এই ৫টি খাবার খান, কোন রো’গ ধা’রে কাছে ঘেঁসতে পারবে না!

চা-কফি নয়, সকালে ঘুম থেকে উঠে এই ৫টি খাবার খান। কোন রো’গ ধারে কাছে ঘেঁসতে ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *