Home / Exception / উপহার না আনায় ব্রিটিশ দূতকে ৪০ ফুট গ’ভীর গ’র্তে ফে’লার নি’র্দেশ দেন নাসরুল্লা খান!

উপহার না আনায় ব্রিটিশ দূতকে ৪০ ফুট গ’ভীর গ’র্তে ফে’লার নি’র্দেশ দেন নাসরুল্লা খান!

মধ্য এশিয়া দখলে ব্রিটিশ ও রাশিয়ানদের মধ্যে তখন চ’লছে শ’ক্তির ল’ড়া’ই। বুখারা, খিবা, খোকান্ড সে সময় বাণিজ্য পথের গু’রুত্বপূর্ণ শহর। রাশিয়াকে ঠে’কাতে বুখারার (বর্তমানে উজবেকিস্তানে অব’স্থি’ত) পাশে থাকার বা’র্তা দেয় ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি।

সেই বা’র্তা নিয়ে সেখানে গিয়েছিলেন ব্রিটিশ কর্নেল চালর্স স্টোডার্ট। ১৮৩৯ সালে রানী ভিক্টোরিয়ার দূত হয়ে তিনি গিয়েছিলেন বু’খারা। কূ”টনী’তির বা’র্তা নিয়েই বুখারার আমিরের কাছে গিয়েছিলেন স্টো’ডার্ট। কিন্তু আমিরের কাছে এলেও কোনো উপহার নিয়ে যাননি তিনি। এতেই চ’টে যান সে সময় বু’খারার আমির নাসরুল্লা খান। উপহার না নিয়ে যাওয়ার ”অ’পরা’ধে” স্টো’ডার্টকে বি’ষা’ক্ত পো’কা ভ’র্তি এক গর্তে (পরে নাম হয় দ্য বাগ পিট) ফে’লে দেওয়ার নির্দে’শ দেন তিনি।

বুখারার জি’ন্দন কা’রাগা’রে রয়েছে এই গ’র্ত প্রায় ৪০ ফুট গ’ভীর। অর্থাৎ তিনতলা বাড়ির সমান এর গ’ভীরতা। দড়ির সাহায্য ছা’ড়া নামা স’ম্ভব নয় এখানে। নামলেও বিপ’দ। কারণ সেই গর্তের ভেতর নানা রকম বি’ষা’ক্ত পো’কামা’কড়, ইঁদু’রের বাস। সেখানেই ফে’লে দেওয়া হয়েছিল ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির স্টো’ডার্টকে।

মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আগে প্রায় তিন বছর সেই গ’র্তের ভেতর নার’কীয় য’ন্ত্র’ণা ভো’গ করতে হয়েছিল তাকে। যদিও কীভাবে ওই পো’কামা’কড় ভর্তি গর্তের ভেতর বছর তিনেক বেঁ’চে ছিলেন তিনি, তা আজও বি’স্ম’য়ের। স্টো’ডার্টের আগেও সেখানে অনেককে ফে’লা হয়েছিল। কিন্তু এত দিন কেউই বাঁ’চেননি।

বুখারা থেকে স্টোডার্টকে উ’দ্ধা’র করতে ১৯৪১ সালে সেখানে যান ব্রিটিশ ক্যাপ্টেন আর্থার কনোলি। প্রথমে তার স’ঙ্গে ভালই ব্যবহার করা হয়েছিল। কিন্তু নাসরুল্লা যখন জানতে পারলেন, রানীকে তার লেখা চিঠির জবাব আনেনি কনোলি, তখন তাকেও ওই গ’র্তে ফে’লে দেওয়ার নির্দে’শ দেন। স্টোডার্টকে উ’দ্ধা’রের পরিবর্তে তার স’ঙ্গেই য’ন্ত্র’ণাময় জীবনের স’ঙ্গী হতে হয় কনোলিকে।

উজবেকিস্তানের অ’ত্যাচা’রী শা’সক হিসেবেই পরিচিত ছিলেন নাসরুল্লা খান। ”ক’সাই” বলে পরিচিত ছিলেন তিনি। ১৮৪২ সালে প্রথম অ্যাংলো-আফ’গান যু’দ্ধের পর ব্রিটেনের সঙ্গে সম্পর্কে উৎ’সাহ হা’রান নাসরুল্লা। তখন তিনি স্টোডার্ট ও কনোলির মৃ’ত্যুদ’ণ্ডের আ’দেশ দেন। দু’র্গের সামনে জনসম’ক্ষে সেই আদে’শ কা’র্যকর করার নির্দে’শ দেওয়া হয়েছিল।

প্রাণ বাঁ’চানোর জন্য তাদের দু’জনকে ইসলাম ধর্মগ্রহণ করতে বলা হয়। কিন্তু তারা সেই প্র’স্তাব প্র’ত্যাখ্যা’ন করেছিলেন। স্টোডার্ট ও কনোলিকে যখন গ’র্ত থেকে তু’লে আনা হয়, তখন তাদের সারা শরীরে ফোঁ’ড়া। আর মুখ-চুল ভর্তি উকুন-সহ নানা পো’কায়। সেই অবস্থাতেই রা’স্তার উপর ন’তজা’নু হয়ে বসা’নো হয় তাদের।

প্রথমে ত’র’বারি দিয়ে ধ’ড় থেকে স্টোডার্টের মু’ণ্ডুকে আ’লাদা করে। তারপর ক’নোলির গ’লা কে’টে দেওয়া হয়। এরপরই ব্রি’টেন জু’ড়ে শো’ক পা’লন করা হয় এই দু’জনের জন্য। স্টোডার্ট ও কনোলির নাম ছ’ড়িয়ে পড়ে ব্রিটেনে ঘরে ঘরে। বর্তমানে বুখারার ‘দ্য বাগ পিট’ পর্যটকদের অন্যতম আক’র্ষণের জায়’গা। বু’খারার জি’ন্দন প্রিজনে ইতিহাসের সা’ক্ষী হতে প্রতি বছর বহু মানুষের সমা’গম ঘ’টে। সূত্র: আনন্দবাজার।

Check Also

মাত্র কয়েক মিনিটেই বাড়ি ছেড়ে পালাবে সব আরশোলা, জেনে নিন সহ’জ উপায়

ঘর-বাড়ি প’রিষ্কার রাখার ক্ষেত্রে কিছু কী’ট-পতঙ্গ আমাদের চিন্তার অন্যতম কারণ হয়ে দাঁড়ায়। যেমন, আরশোলা।রান্নাঘর, বাথরুম ...

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *